LutforPro.Com | Learn SEO To Rank Your Blog On Google

এসইও কি? কেন এসইও শিখবেন ও নিজেকে সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমিজেশন এক্সপার্ট হিসেবে গড়ে তুলবেন

Last Updated: 
November 11, 2020

বর্তমান সময়ে এসইও একটি ট্রেন্ডিং টপিক্স। এবং এটি ফ্রীল্যানসিং-এর অন্যতম জনপ্রিয় মাধ্যম। ক্যরিয়ার হিসাবে ও বেশ ডিমান্ডেবল। তাই, এসইও-তে এক্সপার্ট হলে সেটা লাভজনক। 

যারা অনলাইন থেকে আয়  করতে চান বা করেন তাদের সকলের এটি সম্পর্কে কিছু ধারণা রাখেন। তবে সঠিক ধারণার অভাব ও ভুল তথ্য দক্ষ এসইও এক্সপার্ট হবার ক্ষেত্রে অন্যতম বাঁধা।  

এই আর্টিকেলটিতে আমি চেষ্টা করেছি এসইও নিয়ে আপনাকে একটি সচ্ছ ও পরিপূর্ণ ধারণা দিতে।  যাতে করে আপনি একজন SEO Expert হিসেব গড়ে তুলতে পারেন। 

তো শুরু করা যাক একটা গল্প দিয়ে,

কামাল সাহেব একজন ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা তিনি দেশীও প্রযুক্তিতে ইলেকট্রিক ফ্যান তৈরি করেন। এবং তার একটি ওয়েবসাইট আছে, যেখানে তৈরি সব মডেলের ফ্যানগুলির বিস্তারিত দামসহ দেয়া আছে। 

অন্যদিকে জামাল সাহেবের একটি সিলিং ফ্যান দরকার। কিন্ত, অফিসের কাজে ব্যস্ত থাকার কারনে বাজারে গিয়ে ফ্যান কিনতে পারছেন না। তাই, তার ভরসা অনলাইন থেকে পণ্য কিনে হোম ডেলিভারি  নেওয়া।  গল্পে এই দুই চরিত্র একে অন্যের পরিপূরক।  এখন, জামাল সাহেব গুগল এ "সিলিং ফ্যান " লিখে সার্চ দিলেন। যথারীতি , ১০ টি রেজাল্ট  আসলো। 

কিন্তু, কামাল সাহেব তার পণ্য জামাল সাহেবের কাছে বিক্রি করবেন কিভাবে? বিক্রি করতে হলে তো, তার  ওয়েবসাইটটি জামাল সাহাবের সার্চের পর আসা ১০টি রেজাল্টের মধ্যে আসতে হবে। তাই না? কারন অনলাইনে কামাল সাহাবের মত হাজারও মানুষ তাদের তৈরি বা মজুদকৃত সিলিং ফ্যান বিক্রি করছে। 

আর, এই অবস্থায়  সবচেয়ে ভাল সমাধান হল এসইও  বা সার্চ ইঞ্জিন অপ্তিমাইজেশান।    

এই পোস্ট এ আমি কিছু এসইও অ্যাক্রনেম ও টার্ম ব্যবহার করেছি। সুতরাং, সমস্যা হলে এসইও অ্যাক্রনেম ও টার্ম লিস্ট পোস্টটি পড়ে নিতে পারেন।

সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশান বা এসইও কি ?

SEO  বা সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমিজেশন হল,

একটা পদ্ধতি যার মাধ্যমে সার্চ ইঞ্জিন থেকে ফ্রি (অর্গানিক) ভিজিটর (visitor) পাওয়া যায়।  ভিজিটর হল যে কোনো ওয়েব সাইটের প্রাণ। 

প্রাণহীন বস্তু যেমন মৃত তেমনি ভিজিটরহীন ওয়েব সাইট মূল্যহীন। 

আর আমরা জানি ভিজিটর পেতে হলে অব্যশ্যই সার্চ রেজাল্ট-এ প্রথম পৃষ্ঠায় ওয়েব সাইটি থাকতে হবে।  এর  কোনো বিকল্প (ফ্রি তে - অরগানিক ভিজিটর পেতে ) নাই।

আমরাও প্রতিনিয়ত কোনো না কোন সাইট ভিজিট  করে থাকি। যেমন: আপনি এখন আমার সাইটে ভিজিট করছেন।  আপনি আমার সাইটের একজন দর্শক।  হয়তো, আপনি গুগল সার্চ করে আমার ব্লগ খুঁজে পেয়েছেন। 

কিন্তু, আমার এই লেখা কোনো দর্শকের কাছে না পৌঁছালে এই ব্লগ বা আর্টিকেল লেখা বৃথা। 

এখন,  

SEO বুঝতে হলে ২টি বিষয় বুঝতে হবে, 

১. সার্চ ইঞ্জিন কি? সার্চ রেজাল্ট কিভাবে প্রদর্শন হয়।  

২. কিভাবে একটি ওয়েব পেজকে প্রথম পৃষ্ঠায় rank  করবেন।  

সার্চ ইঞ্জিন কি? সার্চ রেজাল্ট কিভাবে প্রদর্শন হয়  

সার্চ ইঞ্জিন কি? এগুলি কিভাবে কাজ করে এটা জানাবো এই অধ্যায়ে।  

ওয়েব জগতে সবচেয়ে গুরুত্ব পূর্ণ আবিষ্কার হলো সার্চ ইঞ্জিন।  এই সার্চ ইঞ্জিগুলি  অনলাইনে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা সব তথ্য যাচাই বাছাই করে কাঙ্ক্ষিত রেজাল্ট গুলি প্রদর্শন করা। 

আপনি যখন গুগল , বিং, ইয়াহু বা অন্য কোনো সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহার করি - অর্থাৎ কোনো তথ্য খুঁজি তখন আমরা সার্চ বার-এ কিছু লিখে সার্চ দেই।  আমাদের সার্চ দেওয়া এসব শব্দ/ শব্দগুচ্ছ কে এসইও-র ভাষায় কিওয়ার্ড বলে।  

যেকোন সার্চ করলে একটা রেজাল্ট পেজ আসে , যেখানে থাকা ওয়েব পেজগুলি মূলত আমরা ভিজিট করি, তাই না ?  

দ্বিতীয় পৃষ্ঠায় খুব একটা যাওয়া হয় না। অর্থাৎ, প্রথম পৃষ্ঠায় না থাকলে আপনার অন্যান্য অনেকটা  শ্রম বৃথা।  এটা বাস্তবতা। তাই প্রথম পৃষ্ঠায় rank করার বিকল্প নাই।  

সার্চ রেজাল্ট কিভাবে প্রদর্শন হয়

সার্চ ইঞ্জিন বেসিকঃ Search Engine গুলি তৈরি হয়েছে মুলত, আমাদের সঠিক তথ্য ও উপাত্ত খুজে দেবার জন্য। এখন যদি কোন সার্চ ইঞ্জিন আপনাকে ভুল বা অনাকাঙ্ক্ষিত রেজাল্ট দেয় তাহলে?

আপনি হয়ত ওই সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহারই করবেন না। সুতরাং জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে (SERP -এ)  সবচেয়ে সঠিক Result দিতে হবে। আর সেই হিসেবে Google সেরা।

আমি এখানে গুগল কিভাবে  কাজ করে সেটা বর্ণনা করেছি। কেননা যে কোনো মানদন্ডে , Google সার্চ জগতের কিং ও  মোট সার্চ এর ৭৫-৮০% দখল করে আছে।  

একটা বিষয় আমরা সকলেই একমত যে-  প্রায় সবক্ষেত্রে আমরা সার্চ ইঞ্জিন থেকে সঠিক তথ্য পাই। তাই না? 

কিন্তু কিভাবে?    

তাদের কাছে অনলাইনের সব ডকুমেন্ট থাকতে হবে, কিন্তু  প্রথমত সেগুলি খুজে পেতে হবে তাই না ?  

আসুন গুগলের সার্চ ইঞ্জিনের কর্ম পদ্বতি জানি- 

আমরা গুগল সার্চের মাদ্ধমে যে রেজাল্ট দেখি তা ২টি ধাপে হয়ে থাকে।  

১. গুগল স্পাইডার বা বট বা  ক্রলার  : এটি মূলত  সফটওয়ার প্রোগ্রাম, কাজ লিংক থেকে লিংক অর্থ্যাৎ ওয়েবে পেজ  থেকে ওয়েবে পেজ ঘুরে বেড়ানো ও সেগুলি ডাউনলোড করে সার্চ ইঞ্জিনের সার্ভারে (ডাটা সেন্টারে ) সংরক্ষন করা। পরবর্তীতে সেটা আনালাইসিস করে ও ক্যাটাগরাইজ করে। 

২.রেঙ্কিং ফ্যাক্টরঃ  খন আমরা সার্চ ইঞ্জিনে কিছু লিখে ইন্টার বাটন Press  করি, তখন তাদের সার্ভারে থাকা রিলেভেট সব ডকুমেন্ট গুলি বিভিন্ন রেঙ্কিং ফেক্টরে আনালাইসিস করা হয়। আর এই রেঙ্কিং ফেক্টরগুলোর জন্য কোনো সাইট আগে কোনোটা পরে আসে।  আর এই জন্য গুগল নিয়মিত Algorithm আপডেট দিয়ে থাকে। যাতে, SERP পেজের রেজাল্টগুলি আর ভাল ও তথ্য বহুল হয়। 

অর্থ্যাৎ, যে ওয়েব পেজ এই সকল রাঙ্কিং ফেক্টরের জন্য বেশি অপ্টিমাইজড সেটির ranking ততো ভাল। 

জনপ্রিয় সার্চ ইঙ্গিনসমূহঃ 

আসুন জেনে নেই, জনপ্রিয় সার্চ ইঙ্গিনসমূহ কি কি।  জনপ্রিয়তার দিক থাকে ক্রমিকভাবে সাজানো হল -

No Search Engine  Details 
1 Google ৯০%+ সার্চ মার্কেট দখল করে আছে। গড়ে প্রতি সেকেন্ড এ  70,000 সার্চ হয়। 
2 Bing ৩৩% + US মার্কেট শেয়ার করে, কিন্তু US এর বাইরে এটা খুব একটা ব্যবহার হয় না। 
3 Baidu Chinese সার্চ ইঞ্জিন। চায়নাতে গুগল নিষিদ্ধ। 
4 Yahoo! জনপ্রিয়তা দিন দিনে কমে চলছে। সার্চ রেজাল্ট bing থেকে pull করে।  3% মার্কেট শেয়ার করে। 
5 Yandex Russian, ৬৫%+ রাশিয়ান এটা ব্যবহার করে। 
6 Ask.com ০.৩৫ সার্চ ট্রাফিক এটি ব্যবহার করে। 
7 DuckDuckGo এই সার্চ ইঙ্গিন কাউকে ট্রাক করেনা। ২০১৮ সালে, প্রতিদিন গড়ে 26,754,932 সার্চ হয়েছে, যা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে।  

কীভাবে শুরু করবেন সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন

নতুন এসইও এক্সপার্টরা মুলত শুরুতে তালগোল পাকিয়ে ফেলেন। কারন কোথায় কিভাবে শুরু করবে সেটা বুঝতে পারেন না। আর এসইও শিখতে নিজেকে দক্ষ করতে সময় লাগেবে। সুতরাং শেখা ও প্র্যাকটিস এর জন্য সময় দিতেই হবে।

আসুন দেখে নেই (ধাপে ধাপে ) কিভাবে এসইও শুরু করবেন। 

  1. যে কোন বেশিরভাগ ট্রাফিকই আসে সার্চ ইঞ্জিনে বিভিন্ন কি-ওয়ার্ডের মাধ্যমে সার্চ করে।  সুতরাং কোন ওয়েবসাইট বা পেজকে রাঙ্ক করাতে হলে সবার আগে কি-ওয়ার্ডের নির্বাচন (Keyword Research) করতে হবে । তারপরে , সার্চ ইঞ্জিনের নিয়মনীতি অনুসরণ করে যথাযথভাবে অপটিমাইজড (On-page Optimization) করতে হবে।
  2. দ্বিতীয়, ধাপে সাইটি / স্পেসিফিক পেজটি ইনডেক্স (Indexing) বা নথিভুক্ত করতে হবে।
  3. তৃতীয় ধাপটিতে Off-page optimization করতে হবে। এক্ষেত্রে প্রথমে, সোশ্যাল শেয়ার ও প্রবর্তিতেন লিংকবিল্ডিং (link building) বা ব Backlink তৈরি করতে হবে।

কি-ওয়ার্ড নির্বাচন (Keyword Research) কিভাবে করবেনঃ

কিওয়ার্ড (Keyword) হল এমন সব শব্দ বা শব্দগুচ্ছ যা সার্চ ইঞ্জিন user-রা ব্যবহার করেন। এখানে লক্ষণীয়, আপনি একটা বস্তুকে যে নামে সার্চ দেন বা চেনেন অন্যরা হয়ত সে নামে চেনে না বা সার্চ দেয় না।

ধরুন, একটি ওয়েবসাইট ইলেকট্রিক ক-ব্রান্ডের ফ্যান বিক্রি করে বা করবে। সুতরাং, ওই ওয়েবসাইটের জন্য কিওয়ার্ড " ক-ব্রান্ডের ফ্যান" হবে। কিন্তু, এখানে দেখতে হবে ক-ব্রান্ডের ফ্যান লিখে কি আসলেই মানুষ সার্চ করে।

যদি করে না থাকে তা হলে এটি রাঙ্ক করালে কি সেল হবে?

উত্তর হবে না। কেউ যদি সার্চ না দিয়েই থাকে তাহলে কোন ভিজিটর পাওয়া যাবে না। অর্থাৎ, বিক্রি হবে না।

কিওয়ার্ড রিসার্চ-এর ক্ষেত্রে দুইটি গুরুত্ব পূর্ণ টার্ম (term) আছে। সেগুলি হলঃ

Search Volume বা মাসিক গড় সার্চের সংখ্যাঃ

কোন কিওয়ার্ডের বিপরীতে গড়ে প্রতি মাসে কতগুলি সার্চ হয়।

Keyword Difficulty Index বা কিওয়ার্ড রেঙ্কিং করতে কম্পিটিশন

এটি টুলস ভেদে ০-১০০ বা ০-১০ বা ০-১ মেট্রিক্সে গননা করা হয়।  Keyword Difficulty যতকম, ততো সহজ হবে প্রথম পৃষ্ঠায় আসা। তবে, ম্যানুয়ালি কম্পিটিশন যাচাই করা সবচেয়ে ভাল উপায়।

কিওয়ার্ড রিসার্চের টুলসঃ

কিওয়ার্ড  রিসার্চ এর জন্য আমারা বিভিন্ন টুলস ও এক্সটেনশন ব্যবহার করে থাকি। এই টুলসগুলি থেকে আমরা  Keyword Difficulty (KD) ও  Search Volume (SV) পাই।

নিচে সবছেয়ে জনপ্রিয়  পেইড ও  ফ্রি কিওয়ার্ড রিসার্চ টুলসগুলি দেওয়া হল।

  1. আস্রাফ (Ahraf.com) - পেইড,
  2. সেম্রাস (SEMRush.com) - ফ্রী (লিমিটেসনস আছে) ও পেইড,
  3. কিওয়ার্ড সারফার (Surferseo.com)- ফ্রি গুগল ক্রম এক্সটেনশান,
  4.  WMS everywhere - ফ্রি গুগল ক্রম এক্সটেনশান,
  5. Googol AdWords - ফ্রি (লিমিটেসনস আছে)।

On-page Optimization কিভাবে করবেনঃ

অনপেজ অপটিমাইজেশন করা হয় মূলত পূর্বে বাছাইকৃত কিওয়ার্ড দিয়ে। বস্তুত, কোন পেজকে নির্দিষ্ট কিওয়ার্ড এর জন্য অপ্টিমাইজেশান করতে হয়। যেমন ওয়েব ২.০ ব্যাকলিংক তৈরি করা একটি অফ পেজ এসইও- এর কাজ।

এই process-টি সংক্ষেপে বললে,

  • টাইটেল এ অবশ্যই কিওয়ার্ড থাকতে হবে।
  • লিংক বা আঙ্কর (Post link / post anchor)-এ কিওয়ার্ড ব্যবহার করা।
  • টেক্সট এ বা Description বা পোস্ট কন্টেন্ট এ  কিওয়ার্ড ব্যবহার করা।
  • কিওয়ার্ড ডেনসিটি ঠিক রাখতে হবে।
  • LSI  (ল্যাটিন সিমেট্রিক ইনডেক্সিং) বা কিওয়ার্ড-এর সমর্থক শব্দ ব্যবহার করতে হবে।
  • Helpful ছবি ও ভিডিও ব্যবহার করতে হবে।
  • Image এর alt ট্যাগ এ কিওয়ার্ড ব্যাবহার / বা LSI কিওয়ার্ড ব্যবহার করতে হবে।

Off-page optimization কিভাবে করবেনঃ

অফপেজ অপটিমাইজেশন বলতে ব্যাকলিংক বিল্ডিংকে বুঝায়। কিন্তু, এছাড়াও রিলেভেন্ট কিছু প্র্যাকটিস আছে যেমনঃ

  • সোশ্যাল মিডিয়াগুলিতে শেয়ার দেয়া (যদিও এতে রাঙ্কিং Improve হবার সম্ভবনা নাই কিন্তু, ইনডেক্সিং ও ট্রাফিক পেতে কার্যকরী উপায় )।
  • রিলেভেন্ট সাইটে ব্যাকলিংক তৈরি করা।
  • লিংক বানানোর সময় বাজে ও নিম্নমানের ওয়েবসাইটগুলি পরিত্যাগ করা।
  • কোনভাবেই, স্পামিং না করা।
  • ভাল মানের কন্টেন্টচুয়াল (contractual) লিংক তৈরি করা।

কীভাবে একটি ওয়েব পেজকে প্রথম পৃষ্ঠায় Rank করবেন

একজন এসইও এক্সপার্ট -এর কাজ হল সার্চ ইঞ্জিনের এইসকল  রাঙ্কিং ফেক্টরের জন্য অপ্টিমাইজ করা।  

গুগলের 200+  রেংকিং ফ্যাক্টর  আছে।   এই পোস্টে,  সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ  ফাক্টরস গুলো তুলে ধরা হলো। 

গুরুত্বপূর্ণ রেঙ্কিং ফ্যাক্টর 

  • ওয়েবসাইট  ক্রলাবিলিটি ও  স্ট্রাকচার, HTTTPS, User Experience
  • ইউনিক ইনফরমেটিভ, মানসম্মত  অপটিমাইজড  কন্টেন্ট,
  • সার্চ ইন্টেট (Search intent), কন্টেন্ট length,  
  • টাইটেল ট্যাগ, ইউআরএল, ডোমেইন এইজ , কেনোনিক্যাল ট্যাগ
  • ইমেজ অপটিমাইজেশন,
  • কীওয়ার্ড প্রমিনেন্স ও পোষ্টিং, 
  • মোবাইল ইউজার ফ্রেন্ডলিনেস, 
  •  রিলিভেন্সি লিংক, Total referring domains
  • পেইজ স্পিড, 
  • টপিকাল অথোরিটি, 
  •  E-A-T 
  • সোশ্যাল সিগন্যাল, ইত্যাদি । 

কোথায় এবং কীভাবে SEO শিখবেন?

নিজেকে এসইও এক্সপার্ট হিসেবে গড়ে তুলতে হলে ভালভাবে এসইও-র টুকিটাকি বিষয় গুলি শিখতে হবে।

ইউটিউব ও গুগলে এই বিষয়ে প্রচুর ভিডিও ও আর্টিকেল আছে। তছাড়াও অনলাইন ও অফলাইন এ বিভিন্ন ট্রানিং প্রতিষ্ঠান এই বিষয়ে Course প্রদান করে।

আপনি, উপরের ২টি উপায়ের যে কোন একটি নিতে পারেন। কিন্তু আমার সাজেশন হবে আগে অনলাইন থেকে শিখুন পরে Course করে নিতে পারেন।

নিজে নিজ কিভাবে এসইও এক্সপার্ট হওয়া যায় সে সম্পর্কে আমার একটি পৃথক পোস্ট আছে। আশাকরি, সেটা পড়ে নিবেন।

শেষকথাঃ

এসইও কোন ম্যাজিক না, একদিনে শেখা সম্ভব নয়। বরং, প্রতিনিয়ত নিজেকে আপডেট রাখতে হয়। নতুন বিষয় শিখতে হয়।

আশাকরি, আপনার জানার চাহিদাপুরন করতে পেরেছি। যদি তাই হয় তবে পোস্টটি শেয়ার করুন। আর আরও বিস্তারিত জানতে কমেন্ট করুন। ধন্যবাদ।

S M Lutfor Rahman
Internet Marketing Professional, from Bagerhat, Bangladesh. I write and share Digital Marketing tips and tutorials in Bangla especially on SEO, Google Adsense, and Affiliate marketing. Follow this blog to equip up for the basic & latest trends of online marketing and freelancing.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Lutfor Rahman 

Internet marketing professional, Inbound Marketing & SEO Expert from Bangladesh. 

CONTACT ME

01973-LUTFOR
© All Right Reserved at Lutforpro.com
closebarsmobilechevron-circle-down linkedin facebook pinterest youtube rss twitter instagram facebook-blank rss-blank linkedin-blank pinterest youtube twitter instagram
Tweet
Share
Share
Pin
Share