কিভাবে ব্লগিং শুরু করবো (ব্লগিং কিভাবে শিখব)

Last Updated: 
December 21, 2022
ব্লগিং শুরু করতে একটা গাইডলাইন খুজছেন? তাহলে আপনি সঠিক যায়গায় এসেছেন। এই আর্টিকেলে আমি সহজ ভাষার ব্লগিং কিভাবে শিখতে চেষ্টা করেছি।

অনেকেই গুগলকে প্রশ্ন করেন কিভাবে ব্লগিং শুরু করবো এবং ব্লগ শুরু করে । কিন্তু তাদের ব্লগ সফল হয় না এবং তারা আয়ও করতে পারে না। কারন এখনে অনেক কিছু শিখতে হয় যা অনেক আর্টিকেলে বর্ণনা।

আপনি যদি ইন্টারনেট থেকে অর্থ উপার্জনের কথা শুনে থাকেন বা জানেন তবে আপনি অবশ্যই জানেন যে আপনি ব্লগ কী ও কত প্রকার এবং এর মাধ্যমে ঘরে বসে সহজেই অর্থ উপার্জন করতে পারেন। ইন্টারনেট আজকের বিশ্বের সবচেয়ে অনন্য আবিষ্কার। অনলাইন জগতে সবচেয়ে জনপ্রিয় আয়ের উৎস হল ওয়েবসাইট এবং ব্লগ।

কিভাবে ব্লগ সাইট বানাবো সে সম্পর্কে বলার আগে , কিছু জিনিস রয়েছে যা আপনার জন্য জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যদি এই ছোট ছোট বিষয়গুলি সম্পর্কে না জানেন তবে আপনার ব্লগ তৈরি করতে গিয়ে আপনাকে অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে পারে।

১. প্রথমে ব্লগিং এর জন্য কোন বিষয় (নিশ) বেছে নিতে হবে 

একটি ব্লগ তৈরি করার ধারণা বা অনুপ্রেরণা ইন্টারনেটে অন্যান্য ব্লগ, মাসিক আয়ের প্রতিবেদন দেখার পরে বেশিরভাগ মানুষের কাছে আসে। এমতাবস্থায়, তারা যে বিষয়েই অন্যদের ব্লগিং এর মোটিভেশন শুনে মনে করতে থাকে তারাও অল্প সময়ের মধ্যেই জনপ্রিয় হয়ে উঠতে পারে এবং ভাল মানের ইনকাম ও করতে পারবে।

কিন্তু আপনি হয়তো জানেন না যে এই ধরনের 90% ব্লগার ব্যর্থ হয় যারা অন্যদের দেখে ব্লগ তৈরি করে। সেই কারণে আপনি যদি 2023 সালে একটি ব্লগ তৈরি করতে চান যা গুগল ট্র্যাফিক নিয়ে আসতে পারে, তাহলে ভালো ইনকাম করা সম্ভব।

এই ধরনের একটি সেরা ব্লগিং নিশ নির্বাচন করতে , আপনাকে এই টিপসগুলির সাহায্য নিতে হবে।

  • প্রত্যেক মানুষই কিছু কাজ করতে পছন্দ করে, যেমন সিনেমা দেখা, গান শোনা/লেখা, রান্না করা বা খাওয়া, ভ্রমণ করা, গেম খেলা, কম্পিউটার চালানো, ব্যবসা করা, চাকরি করা, বই পড়া, খেলা বা যেকোনো কিছু করা।
  • আপনি যা পছন্দ করেন, আপনার ব্লগের জন্য সেই বিষয়টি বেছে নিন। উদাহরণ - আপনি যদি গেম খেলতে পছন্দ করেন, তাহলে আপনার ব্লগের জন্য গেমিং বিষয়টি বেছে নেওয়া উচিত।
  • আপনার পছন্দের একটি টপিক বেছে নেওয়ার সবচেয়ে বড় সুবিধা হল ব্লগিং করা আপনার জন্য কোন কাজ নয়, এটি আগ্রহের বিষয় হবে এবং পোস্ট লিখতে আপনাকে টপিক নিয়ে চিন্তা করতে হবে না।

২. একটি ব্লগিং প্লাটফর্ম সিলেক্ট করুন

 ব্লগিং প্লাটফর্ম সিলেক্ট করুন

ব্লগ কিভাবে তৈরি করতে হয় তা জানার আগে বিভিন্ন প্লাটফর্ম সম্পর্কে জানতে হবে। বেছে নেওয়ার জন্য অনেক ব্লগিং প্ল্যাটফর্ম আছে। এই প্ল্যাটফর্মগুলি নিম্নলিখিত হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা যেতে পারে:

ব্লগার (Blogger.com)

ব্লগার হল ব্যক্তিগত ব্লগের প্রথম প্ল্যাটফর্ম। এটি দীর্ঘকাল ধরে রয়েছে এবং এটি এখনও সবচেয়ে জনপ্রিয়। এটি ফ্রি এবং এতে অ্যাডসেন্স এর ব্যবহার করে সহজেই মনিটাইজে করা যায়।

এছাড়াও ব্লগারে আপনি ফ্রি সাব-ডোমেইন ক্রিয়েট করে শুরু করতে পারেন, আলাদা করে হোস্টিং ও কিনতে হবে না। কাস্টম ডোমেইন নেম এড করার সুযোগ তো আছেই। বলা চলে নতুনদের জন্য একটি সম্পূর্ণ প্যাকেজ।

তবে এর বেশ কিছু অসুবিধা ও আছে, যেমন - ডিজাইন করা কঠিন ও লিমিতেড, এসইও ফিচারগুলো ব্যসিক এবং ড্যাশবোর্ড এর ব্যসিক ফিচার।

ওয়ার্ডপ্রেস

ওয়ার্ডপ্রেস 60 মিলিয়নেরও বেশি লোক ব্যবহার করে, ইন্টারনেটের 43.2% এরও বেশি ওয়েবসাইট ওয়ার্ডপ্রেসে চলছে। এটি শক্তিশালী এবং প্রচুর কাস্টমাইজেশন ফিচার রয়েছে।

যদিও এই প্ল্যাটফর্মের কিছু ত্রুটি রয়েছে, যেমন মোবাইল-থেকে ব্যবহার করার সমস্যা এবং টাকা ছাড়া আপনার নিজের ডোমেন নাম হোস্ট করতে পারবেন না।

ওয়ার্ডপ্রেস এর সবচেয়ে ভাল বিষয় হলো এর বিশাল প্লাগইন ও থিমের সমাহার। যা পেইড ও ফ্রি। প্রফেশনাল ব্লগিং এর জন্য পারফেক্ট ওয়ার্ডপ্রেস, এসইও-র জন্য আদর্শ, ডিজাইন মনের মত করতে পারবেন।

আপনি যদি ব্লগিংকে ক্যারিয়ার হিসেবে নিতে চান আমার সাজেশন থাকবে ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করার।

এই প্ল্যাটফর্মটি তাদের জন্য যারা শুরুতে অর্থ বিনিয়োগ করতে পারেন। এতে আপনি আপনার ব্লগ কাস্টমাইজ করার অনেক অপশন পাবেন। এছাড়াও, আপনি আপনার ব্লগ রক্ষণাবেক্ষণের জন্য খুব বেশি সমস্যার সম্মুখীন হবেন না।

তবে অর্থের অসুবিধা থাকলে আমার মতে, আপনাকে প্রথমে ব্লগারে আপনার ব্লগ তৈরি করা উচিত কারণ এটি বিনামূল্যে। যখন আপনার টাকা আসতে শুরু করবে তখন আপনি ওয়ার্ডপ্রেসে আপনার ব্লগ তৈরি করতে পারবেন।

টাম্বলার

টাম্বলার অল্প বয়স্ক শ্রোতাদের জন্য খুব জনপ্রিয় এবং অন্যান্য ব্লগিং প্ল্যাটফর্মের তুলনায় এটির একটি ভিন্ন ডিজাইন রয়েছে, যা আপনি টাম্বলারের ইন্টারফেসের সাথে পরিচিত না হলে এটি ব্যবহার করা আপনার জন্য কঠিন হতে পারে। তবে এটি পার্সোনাল ব্লগারদের জন্য আদর্শ। যারা ব্লগ থেকে আয় করতে চান তাদের এটা ব্যবহার করা উচিৎ হবে না।

৩. সঠিক ডোমেইন এবং ব্লগের নাম কোনটি বেছে নেবেন

নিশ ও ব্লগের জন্য প্লাটফর্ম নির্বাচনের পরে, আমাদের আরেকটি কাজ করতে হবে - নতুন ব্লগের ঠিকানা বা ডোমেইন নাম কি নির্বাচন করা।

আমরা এর জন্য অনেক ধরনের ব্লগের নাম জেনারেটর টুল ব্যবহার করি, এ বিষয়ে মানুষের কাছ থেকে পরামর্শ নিই। আপনার ব্লগের জন্য সঠিক নামটি বেছে নিতে নিচের পয়েন্টগুলো ফলো করতে পারেন।

  • সর্বদা ডোমেইন নাম বা ব্লগের নাম সংক্ষিপ্ত, সহজ রাখুন যাতে এটি সহজেই মনে রাখা যায়।
  • ডোমেইন ইউআরএলে ব্লগের মূল কীওয়ার্ড রাখার চেষ্টা করুন। তবে সবচেয়ে ভালো হয় যদি আপনি যে বিষয়ে (নিশে) লিখবেন তার একটা প্রতিফলন থাকলে ভালো হয়।
  • আপনি যদি একটি নির্দিষ্ট এলাকা, ভাষার শ্রোতাদের লক্ষ্য করে থাকেন, তাহলে অবশ্যই তা উল্লেখ করতে পারেন।
  • ডোমেইন URL-এ কোনো বিশেষ অক্ষর ব্যবহার করবেন না। এটা দেখতে খারাপ লাগে ,এবার মনে রাখাও কঠিন হয়।

উদাহরণ – আপনি যদি আপনার ব্লগ তৈরি করার জন্য গেম বিষয়টি নির্বাচন করে থাকেন, তাহলে এই ধরনের ডোমেইন নাম হতে পারে। gameninja.com.

বিদ্রঃ ডোমেইন নেম সিলেক্ট করার সময় এমন নাম সিলেক্ট করবেন যা ছোট, শুনলে ভালো লাগে, একটা ভালো লাগা কাজ করে। কাউকে বলতে ও বুঝতে ঝামেলা হয় না।

এস এম লুতফর রহমান

আপনি যদি ব্লগের বিষয় এবং নাম ঠিক করে থাকেন, তাহলে আপনি একটি ব্লগ তৈরি করতে প্রস্তুত এবং চলুন দেখি, কিভাবে ব্লগিং সাইট শুরু করবেন!

কিভাবে এবং কোথায় ডোমেইন কিনবেন

ব্যক্তিগত ওয়েবসাইট বিনামূল্যে সাবডোমেন দিয়ে তৈরি করা যেতে পারে, তবে ওয়ার্ডপ্রেস সিএমএস-এর উপর ভিত্তি করে একটি ব্লগ তৈরি করতে abc.com, abc.net, abc.org ইত্যাদির মতো একটি কাস্টম ডোমেন নাম প্রয়োজন। আর এর জন্য আপনাকে ডোমেইন কিনতে হবে এবং কিভাবে এবং কোথা থেকে কিনতে হবে সে সম্পর্কে জানতে হবে।

ওয়ার্ডপ্রেসে ব্লগ তৈরি করতে হোস্টিং এবং ডোমেইন উভয়েরই প্রয়োজন হয় এবং অনেক সময় আমরা অন্য কোনো জায়গা থেকে ডোমেইন এবং অন্য কোনো জায়গা থেকে হোস্টিং কিনে থাকি।

৪. একটা ভালো হোস্টিং সার্ভার নিন

হোস্টিং হলো একটি ওয়েব সার্ভার যেখানে আপনি আপানর সাইট এর কন্টেন্ট টেক্সট, ইমেজ, ভিডিও রাখবেন। এবং আপনার সিএমএস ইন্সটল করেবেন।

ওয়েব হোস্টিং গুরুত্বপূর্ণ আপনার ওয়েবসাইটটি সার্ভারে হোস্ট না করা পর্যন্ত অনলাইনে কেউ অ্যাক্সেস করতে পারবে না ।

তবে, সিএমএস হিসেবে ব্লগার.কম ব্যবহার করলে আপনার হোস্টিং কিনতে হবে না। যেহেতু এ আপনি এটা ফ্রী পাবেন।

আমরা একই জায়গা থেকে ডোমেইন এবং হোস্টিং কিনতে পারি, আমরা আলাদা ডোমেনের মত আলাদা হোস্টিং কিনতে পারি।

৫. কিভাবে ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগ সেটআপ করবেন

আমরা জানতে পেরেছি যে একটি নতুন ব্লগ তৈরি করতে, আমরা ডোমেইন কিনেছি, আমরা হোস্টিং কিনেছি। এখন এই দুটিকে একসাথে সংযুক্ত করতে হবে এবং একটি ভালো ব্লগ তৈরি করতে হবে, এর জন্য আমাদের ব্লগ সেটআপ গাইড অনুসরণ করতে হবে, তাহলে আপনার ব্লগ ইন্টারনেটে লাইভ হবে।

আপনি যদি নিজের জায়গা থেকে হোস্টিং এবং ডোমেইন কিনে থাকেন তবে ওয়ার্ডপ্রেস এর সরাসরি cPanel এ গিয়ে সেটআপ করা যেতে পারে, তবে ডোমেইন এবং হোস্টিং যদি দুটি আলাদা প্রোভাইডার থেকে নেওয়া হয় তবে উভয়কে একসাথে সংযুক্ত করার প্রয়োজন রয়েছে।

আপনি যখন হোস্টিং কিনবেন, আমরা দুটি নেমসার্ভার পাই যা দেখতে এরকম কিছু।

ns34.domaincontrol.com
ns33.domaincontrol.com

আপনি যেখান থেকে ডোমেইনটি কিনেছেন সেগুলি উভয়কেই ইতিমধ্যে বিদ্যমান নেমসার্ভারের জায়গায় হোস্টিং দ্বারা প্রদত্ত নেমসার্ভার যোগ করতে হবে।

এই কাজটি করার পরে, আমাদের হোস্টিং cPanel-এ যেতে হবে এবং তারপরে WordPress CMS অ্যাপ্লিকেশন ইনস্টল করতে হবে ।

ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল হওয়ার পর, আপনাকে ব্রাউজার খুলতে হবে এবং আপনার URL দিয়ে wp-admin সার্চ করতে হবে। abc.com/wp-admin লাইক করুন এবং তারপর ধাপে ধাপে সমস্ত প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে, তারপর আপনি ব্যবহারকারীর নাম এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগ ইন করতে পারেন।

৬. নতুন ব্লগে একটি সুন্দর থিম বা ব্লগ ডিজাইন ইমপ্লিমেন্ট করুন

যাইহোক, আমাদের ব্লগ ওয়েব সাইটটি পূর্ববর্তী ধাপটি সম্পূর্ণ করার পরেই সেটআপ করা হয়েছে এবং আমরা চাইলে কন্টেন্ট প্রকাশ করা শুরু করতে পারি। কিন্তু আপনি যখন আপনার ডোমেনের নাম লিখে ইন্টারনেট ব্লগ খুলবেন, তখন থিম ছাড়া ব্লগটি আপনার পছন্দ নাও হতে পারে।

সুতরাং এমন পরিস্থিতিতে, আমাদের ব্লগে হেডার, লোগো, ফুটার, স্লাইড সবকিছু সঠিকভাবে সেট করতে হবে, আমাদের একটি ওয়ার্ডপ্রেস থিম ইনস্টল করতে হবে এবং এখানে কিছু ফ্রি ওয়ার্ডপ্রেস থিমের তালিকা রয়েছে, যেখান থেকে আপনি আপনার পছন্দের থিম নির্বাচন করতে পারেন।

ওয়ার্ডপ্রেস ড্যাশবোর্ডে লগইন করার পর থিম ইনস্টল করা খুবই সহজ।

  1. Apprearance-এ যান।
  2. থিম অপশনে যান।
  3. Add New অপশনে যান।

আপনি যদি আপনার সিস্টেমের কোথাও থেকে থিম ডাউনলোড করে থাকেন তবে নতুন ব্লগ থিম আপলোড করতে আপলোড এ ক্লিক করুন এবং এটি ইনস্টল এবং সক্রিয় করুন এবং যদি না করা হয় তবে আপনি সরাসরি ড্যাশবোর্ড থেকে একটি নতুন থিম যুক্ত এবং কাস্টমাইজ করতে পারেন।

৭. ব্লগ লিখতে ও পাবলিশ করতে শুরু করুন

WordPress ব্লগ লিখতে ও পাবলিশ করতে শুরু করুন

আপনি ব্লগার ব্লগের নিচে একটি (+) চিহ্ন দেখতে পাবেন এবং আপনি ওয়ার্ডপ্রেসে New → Post এ গিয়ে একটি ব্লগ লিখতে পারবেন।

  • ব্লগ লিখতে ও পাবলিশ করতে প্রথমে আপনার সাইটে লগইন করুন (না করা থাকলে)।
  • এরপর ড্যাশবোর্ড থেকে Posts এর উপরে মউস নিন ও ড্রপদাউন মেন্যু থেকে Add new সিলেক্ট করুন।

এবার আপনি এখানে লেখা শুরু করতে পারেন বা আগের থেকে লেখা কন্টেন্ট কপি পেস্ট করে, পাবলিশ বাটনে ক্লিক করলে সেটা আপনার সাইটের যে কোন ভিজিটর দেখতে পাবে।

এখনে, ব্লগ লিখে পাবলিশ করার পরে সেটাতে ট্রাফিক পেতে হবে। তাছাড়া আপনার কন্টেন্টটি লেখা বৃথা।

৮. এসইও করুন

আপনার লেখা কন্টেন্টগুলোতে ভিজিটর পাওয়ার জন্য সেটা এসইও করতে হবে

আপনি যদি কোনো বিষয়ে তথ্য চান বা কোনো সমস্যার সমাধান চান, তাহলে আপনি চিন্তা না করে গুগলে সার্চ করেন। সেখানে আপনি অনেক সমাধান পাবেন। একইভাবে, আপনি এটাও বলতে পারেন যে ইন্টারনেটের চেয়ে বড় জ্ঞানের উৎস আর নেই।

কিন্তু কখনো কি ভেবে দেখেছেন যে গুগলে সার্চ করলে আমরা যে সমাধান বা জ্ঞান পাই, তা আসে কোথা থেকে? গুগল কি আপনার জন্য এই সমাধানগুলি লেখে? না, এই সমস্ত তথ্য আপনাকে বিভিন্ন ওয়েবসাইট এবং ব্লগ দেয়। Google এর কাজ হল যে এটি সেই ওয়েবসাইট/ব্লগগুলির লিঙ্কগুলি তার ডাটাবেসে সংরক্ষণ করে এবং অনুসন্ধানের ফলাফলগুলিতে দেখানো।

ব্লগ পোস্ট এসইও করতে নিচের ধাপগুলো ফলো করতে পারেন

ধাপ #১ঃ কিওয়ার্ড রিসার্চ করুন

আমারা প্রথম ধাপে একটি নিশ বা নিস বেছে নিয়েছিলাম ব্লগিং করার জন্য, কিওয়ার্ড রিসার্চ এর সময় আমাদের ওই নিশ বা বিষয়ে মানুষজন যা সার্চ করে সেটা বের করতে হবে।

ধরুন, আপনি এমন একটা বিষয়ে কন্টেন্ট লিখেছেন যা কেউ খোঁজে না, বা কারো প্রয়োজন নাই, তাহলে ওই কন্টেন্টটিতে ভিজিটর পাবেন না।

তাই আপানেকে কিওয়ার্ড রিসার্চ শিখতে হবে। ফ্রীতে কিওয়ার্ড রিসার্চ করতে Keyword Surfer বা Whatsmyserp এর যেকোনো একটি গুগল ক্রম এক্সটেনশন ব্যবহার করুন।

Keyword Surfer এর ব্যবহার
Keyword Surfer এর ব্যবহার

কোন কিওয়ার্ড নিয়ে আর্টিকেল লেখার আগে নিশ্চিত করুন.

  1. এর Search Volume আছে
  2. কিওয়ার্ডটির কম্পিটিশন দেখুন
  3. এবং একই পোস্টে কাভার করা যায় এমন related কিওয়ার্ডগুলো সিলেক্ট করুন

ধাপ #২ঃ আর্টিকেল লিখুন ও অন-পেজ এসইও করুন

এই ধাপে আপনাকে এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেলে লিখা শিখতে হবে। এটি একটি শিল্প যা আপনার ব্লগ বা আপনার লেখার ক্যারিয়ারকে পরবর্তী স্তরে নিয়ে যেতে পারে।

প্রতিটি ব্লগ পোস্ট সার্চ ইঞ্জিন র‌্যাঙ্কিংয়ের ক্ষেত্রে একটি ওয়েব পেজের মতো এবং আপনি সার্চ ইঞ্জিনের জন্য নির্দিষ্ট কীওয়ার্ড দিয়ে প্রতিটি পোস্ট অপ্টিমাইজ করতে পারেন।

ওয়ার্ডপ্রেস সাইটে এসইও করতে কিছু প্লাগিন ব্যবহার করতে হয়। যেমনঃ Rankmath, Yoast, Allinoneseo ইত্যাদি।

  • পাঠকদের জন্য পোস্ট টাইটলে এবং সার্চ ইঞ্জিনের জন্য মেটা টাইটলে এ কীওয়ার্ড ব্যবহার করুন।
  • মেটা ডিসক্রিপশন লিখুন করুন (এটি আরও ভাল CTR এর জন্য অপ্টিমাইজ করুন এবং একবার আপনার টার্গেট কীওয়ার্ড ব্যবহার করুন)।
  • ইমেজ Alt টেক্সট (কিওয়ার্ড ব্যবহার করুন)।
  • ভালো অ্যাঙ্কর টেক্সট ব্যবহার করে একটি পোস্টের মধ্যে ইন্টারনাল লিংক করুন।
  • পারমালিঙ্ক পোস্ট করুন (পারমালিঙ্ক থেকে স্টপ শব্দগুলি সরান)।
  • সঠিক শিরোনাম ট্যাগ ব্যবহার করুন (H1, H2, H3 ট্যাগে কীওয়ার্ড ব্যবহার করুন)।

৯. সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন

আপনার ব্লগ সাইটে ট্রাফিক সামাজিক মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলোতে পোস্ট শেয়ার করতে পারেন। সোশ্যাল মিডিয়াতে আর্টিকেল শেয়ার করা যেমন গুরুত্বপূর্ণ, তেমন আপনার আর্টিকেল যেন রিডাররা শেয়ার করে সেটাতে উৎসাহিত করাও গুরুত্বপূর্ণ৷

তাই আপনার সাইটে সোশ্যাল শেয়ারিং বাটন এড করুন।

১০. ব্লগ থেকে টাকা আয় করা করার জন্য এটি মনিটাইজ করুন

ব্লগ থেকে অর্থ উপার্জনের জন্য কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় রয়েছে, যার সাহায্যে আপনি ব্লগ থেকে প্রতি মাসে লাখ লাখ টাকা আয় করতে পারেন। চলুন জেনে নিই-  কিভাবে ব্লগ থেকে টাকা আয় করা যায়।

  • আপনি আপনার ব্লগে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে অর্থ উপার্জন করতে পারেন।
  • আপনি যদি চান, ব্লগে গুগল অ্যাডসেন্স Ads দিয়ে টাকা আয় করতে পারেন। বেশিরভাগ ব্লগার শুধুমাত্র অ্যাডসেন্স ব্যবহার করেন।
  • আপনি ব্লগের মাধ্যমে যেকোনো পণ্যের অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে কমিশন উপার্জন করতে পারেন।
  • আপনি একটি ইবুক বিক্রি বা প্রস্তুত করে এবং এটি একটি ব্লগের মাধ্যমে বিক্রি করে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। আপনার অনুগত পাঠকরা অবশ্যই আপনার পণ্য কিনবেন।
  • গেস্ট পোস্ট গ্রহণ করে আপনার ব্লগ থেকে আয় করুন।

ব্লগিং শুরু করা বা শেখার বিষয়ে দুটি কথা

আমার উপরের আলোচনা থেকে আপনি হয়তো এতখনে বুঝে গেছেন, হুট করেই ব্লগিং শুরু করা যায় না। এতে প্রচুর পরিমান সময় লাগে। লেগে থাকতে হবে আর শিখতে হবে অনেক কিছু।

আশা করি আপনারা নিশ্চয়ই বুঝতে পেরেছেন যে কিভাবে ব্লগিং শুরু করবেন? এবং কিভাবে নতুন ব্লগ সেটআপ করবেন? এ সম্পর্কে প্রায় সম্ভাব্য প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়েছি। আপনি যে কোন বিষয়ে একটি ব্লগ করতে পারেন, এই টিপস আপনার জন্য সহায়ক হবে. ভালো লাগলে শেয়ার করবেন।

আপনার কোন প্রশ্ন থাকলে নিচের কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করুন। আমাদের সাথে যুক্ত হতে, আমাদের  ফেসবুক পেজ লাইক করুন এবং আমাদের সাথেই যুক্ত থাকুন।

প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী (FAQ)

আমি কি 2023 সালে একটি ব্লগ শুরু করব?

হ্যাঁ, আপনার 2023 সালে একটি ব্লগ শুরু করা উচিত।

কিভাবে মোবাইল থেকে ব্লগ বানাবেন?

আপনি যেমন কম্পিউটার থেকে ব্লগ তৈরি করেন, তেমনি মোবাইল থেকেও ব্লগ তৈরি করতে পারেন। মোবাইল থেকে ব্লগ তৈরি করতে প্রথমে Chrome ব্রাউজার খুলুন এবং সেখান থেকে blogger.com বা wordpress.com ওয়েবসাইটে যান। এখানে আপনার অ্যাকাউন্ট তৈরি করে, আপনি উপরে দেওয়া ধাপগুলির সাহায্যে একটি বিনামূল্যে ব্লগ তৈরি করতে সক্ষম হবেন

ব্লগ লেখা কি?

ওয়েবসাইট তৈরি করে অনলাইনে আপনার অভিজ্ঞতা ও জ্ঞান লেখাকে বলা হয় ব্লগ লেখা বা ব্লগ পোস্ট বলে।

কত ধরনের ব্লগ আছে?

ব্লগ পাচ ধরনের আছে। এর মধ্যে ব্যক্তিগত, কোম্পানি এবং পেশাদার ব্লগ এই তিনটি জনপ্রিয়।

ব্লগ কবে শুরু হয়?

ব্লগটি 23 আগস্ট 1999 সালে শুরু হয়েছিল।আশা করি আপনি বুঝতে পেরেছেন কিভাবে একটি ব্লগ তৈরি করতে হয় এবং কিভাবে অর্থ উপার্জন করতে হয় । এটা খুব সহজ, আপনাকে শুধু কিছু সহজ ধাপ অনুসরণ করতে হবে। আপনি যদি এই সম্পর্কিত কোন তথ্য চান, আপনি আমাকে জিজ্ঞাসা করতে পারেন. আমি যতটা সম্ভব সাহায্য করার চেষ্টা করব।

S M Lutfor Rahman
S M Lutfor Rahman
Internet Marketing Professional, from Bagerhat, Bangladesh. I write and share Digital Marketing tips and tutorials in Bangla especially on SEO, Google Adsense, and Affiliate marketing. Follow this blog to equip up for the basic & latest trends of online marketing and freelancing.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Table of Contents

এই সম্পর্কিত আরও পোস্ট

Ready for Action?

Cottage out enabled was entered greatly prevent message. No procured unlocked an likewise. Dear but what she been over guy felt body.
Let's Start
envelopephone linkedin facebook pinterest youtube rss twitter instagram facebook-blank rss-blank linkedin-blank pinterest youtube twitter instagram